বাংলাদেশের জলবায়ু কন্যা রেবেকা।

পৃথিবীকে রক্ষার আন্দোলনে গ্রেটা থুনবার্গের মতো স্কুল শিক্ষার্থীরা এখন অগ্রণী ভূমিকা পালন করছে। গত সেপ্টেম্বরে জাতিসংঘের সাধারণ পরিষদের অধিবেশনের সময় গ্রেটার ডাকে নিউ ইয়র্কসহ বিশ্বের বড়ো বড়ো শহরে সমাবেশ হয়। সে সময় ম্যানহাটানে দুই লাখের বেশি মানুষের সামনে দাঁড়িয়ে জলবায়ু পরিবর্তনে চরম ঝুঁকিতে থাকা বাংলাদেশ, বিশেষ করে বাংলাদেশি নারী, শিশু ও রোহিঙ্গাদের ঝুঁকির কথা তুলে ধরেছিলেন এক বাংলাদেশি-আমেরিকান কিশোরী। যার নাম রেবেকা শবনম। বলা হচ্ছে, পৃথিবী রক্ষার আন্দোলনের নতুন মুখ এই সে। সম্প্রতি আলজাজিরা তাকে নিয়ে একটি প্রতিবেদন প্রকাশ করেছে।

নিউ ইয়র্কের ঐ সমাবেশে ১৬ বছর বয়সি রেবেকা স্মৃতি। দৃপ্তকণ্ঠে জানায়, আমি বাংলাদেশ থেকে এসেছি। জলবায়ু পরিবর্তনের ফলে সৃষ্ট জরুরি অবস্থা কীভাবে জাতিগত অনাচার ও দারিদ্র্যের সঙ্গে আন্তঃসম্পর্কিত তার একটি উদাহরণ হলো বাংলাদেশ। রেবেকার বয়স যখন ৬ বছর তখন পরিবার তাকে নিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে চলে যায়। এখন সে নিউ ইয়র্কের একটি হাইস্কুলের ছাত্রী। রেবেকা শবনম আল জাজিরাকে জানায়, বাংলাদেশকে নিয়ে কথা বলার সময় ভেবেছিলাম নীরবতা ছাড়া আর কিছুই শুনতে পাব না। কিন্তু জনতার সাড়া দেখে অভিভূত হয়েছি। জলবায়ু সংকট শুধু একটি পরিবেশগত ইস্যু নয়। এটি জরুরি মানবাধিকার বিষয়ক ইস্যুও। বাংলাদেশি নারী এবং রোহিঙ্গাদের আমরা জানাতে চাই যে, বিশ্ব জুড়ে যুবসমাজ তাদের জীবন ও নিরাপত্তার জন্য লড়ছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউইয়র্ক রাজ্যের বাফেলো শহরে কনস্যুলার সেবা দিয়েছে নিউইয়র্কের বাংলাদেশ কনস্যুলেট। নিউইয়র্কে বাংলাদেশের কনসাল জেনারেল সাদিয়া ফয়জুননেসার নেতৃত্বে গত ২৮ ও ২৯ নভেম্বর এই সেবা কার্যক্রম পরিচালিত হয়। বাংলাদেশ সোসাইটি অব বাফেলো নিউইয়র্ক ইন্ক-এর সহযোগিতায় কনস্যুলার ক্যাম্পে প্রবাসীদের উপস্থিতি ছিল বিশেষভাবে লক্ষণীয়। নিউইয়র্কের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, থ্যাঙ্কসগিভিং ডে-তে ফেডারেল ছুটি থাকায় বাফেলো এবং পার্শ্ববর্তী শহরগুলোতে বসবাসরত বাংলাদেশি-আমেরিকানরা তাদের প্রয়োজনীয় কনস্যুলার সেবা গ্রহণ করতে পেরে সন্তোষ প্রকাশ করেন। এখানে উল্লেখ্য, বাফেলো শহরে বাংলাদেশি-আমেরিকান নাগরিকের সংখ্যা উল্লেখযোগ্য হারে বৃদ্ধি পাচ্ছে। দুদিনব্যাপী এই কনস্যুলার ক্যাম্পে প্রায় ৫০০ জন বাংলাদেশি-আমেরিকান নাগরিক বিভিন্ন ধরনের কনস্যুলার সেবা গ্রহণ করেন। সেবাসমূহের মধ্যে ছিল মেশিন রিডেবল পাসপোর্ট, নো ভিসা রিকোয়ার্ড, এন্ডোর্সমেন্ট, পাওয়ার অব অ্যাটর্নি, দ্বৈত নাগরিকত্ব সার্টিফিকেট, ট্রাভেল ডকুমেন্ট, জন্ম সনদ, এলাইভ সার্টিফিকেটসহ অন্যান্য।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *